ঢাকা ১০:১২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম...

জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে গেছে সুন্দরবন, দেওয়া হয়েছে ১০ নম্বর সতর্ক সংকেত

ঘূর্ণিঝড়ে প্রভাবে মোংলায় দেওয়া হয়েছে ১০ নাম্বার সতর্ক সংকেত এবং সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে গেছে গোটা সুন্দরবন।

রোববার (২৬ মে) পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজননকেন্দ্র ও পর্যটন স্পটের ওসি আজাদ কবির জানান, ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে স্বাভাবিকের চেয়ে চার ফুট পানি বেড়ে সুন্দরবন তলিয়ে গেছে। পানির চাপ আরও বাড়বে। তবে বণ্যপ্রাণীর ক্ষয়ক্ষতির কোনও আশঙ্কা নেই।

তিনি আরো জানান, ‘ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণে সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে পুরো সুন্দরবন বিভাগের কর্মকর্তা ও বনরক্ষীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। বন বিভাগের ঝুঁকিপূর্ণ ক্যাম্পগুলোতে থাকা বনরক্ষীদের এরই মধ্যে নিরাপদে সরিয়ে আনা হয়েছে।’

মোংলা আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ হারুন অর রশিদ জানিয়েছেন, মোংলায় দেওয়া হয়েছে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত। ঘূর্ণিঝড়টি এখন মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ২৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছে। এটি রবিবার সন্ধ্যা নাগাদ সুন্দরবন ও মোংলা উপকূল অতিক্রম করে পটুয়াখালীর খেপুপাড়ায় আছড়ে পড়বে।

মোংলা পৌরসভার মেয়র শেখ আব্দুর রহমান জানান, ঝুঁকি এড়াতে যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে জরুরি কাজ ও রোগীদের কথা চিন্তা করে মোংলা নদীতে ফেরি চালু রাখা হয়েছে।’ পৌর শহরের আশ্রয়কেন্দ্রে লোকজনকে আনতে ব্যাপক তৎপরতা চালানো হচ্ছে।

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

জনপ্রিয় সংবাদ

জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে গেছে সুন্দরবন, দেওয়া হয়েছে ১০ নম্বর সতর্ক সংকেত

আপডেট সময় : ০৩:৩৪:১১ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪

ঘূর্ণিঝড়ে প্রভাবে মোংলায় দেওয়া হয়েছে ১০ নাম্বার সতর্ক সংকেত এবং সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে গেছে গোটা সুন্দরবন।

রোববার (২৬ মে) পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজননকেন্দ্র ও পর্যটন স্পটের ওসি আজাদ কবির জানান, ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে স্বাভাবিকের চেয়ে চার ফুট পানি বেড়ে সুন্দরবন তলিয়ে গেছে। পানির চাপ আরও বাড়বে। তবে বণ্যপ্রাণীর ক্ষয়ক্ষতির কোনও আশঙ্কা নেই।

তিনি আরো জানান, ‘ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণে সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে পুরো সুন্দরবন বিভাগের কর্মকর্তা ও বনরক্ষীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। বন বিভাগের ঝুঁকিপূর্ণ ক্যাম্পগুলোতে থাকা বনরক্ষীদের এরই মধ্যে নিরাপদে সরিয়ে আনা হয়েছে।’

মোংলা আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ হারুন অর রশিদ জানিয়েছেন, মোংলায় দেওয়া হয়েছে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত। ঘূর্ণিঝড়টি এখন মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ২৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছে। এটি রবিবার সন্ধ্যা নাগাদ সুন্দরবন ও মোংলা উপকূল অতিক্রম করে পটুয়াখালীর খেপুপাড়ায় আছড়ে পড়বে।

মোংলা পৌরসভার মেয়র শেখ আব্দুর রহমান জানান, ঝুঁকি এড়াতে যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে জরুরি কাজ ও রোগীদের কথা চিন্তা করে মোংলা নদীতে ফেরি চালু রাখা হয়েছে।’ পৌর শহরের আশ্রয়কেন্দ্রে লোকজনকে আনতে ব্যাপক তৎপরতা চালানো হচ্ছে।