ঢাকা ০৮:৫৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম...

সুখি দেশের তালিকায় পাকিস্তান-মিয়ানমার থেকেও পিছিয়ে বাংলাদেশ

টানা সপ্তম বারের মতো বিশ্বের সবচেয়ে সুখি দেশের খেতাব ধরে রেখেছে নরডিক দেশ। জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড হ্যাপিনেস রিপোর্টে ২০২৪ সালের সুখি দেশের সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৯ নম্বরে। সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার আরো ২ দেশ পাকিস্তান ও মিয়ানমারের অবস্থান যথাক্রমে ১০৮ ও ১১৮ নম্বরে।

বুধবার (২০ মার্চ) প্রকাশিত এই রিপোর্টে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৯তম। ৩০ বছর বয়সীদের সুখি হওয়ার সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৮তম। প্রবীণ- যাদের বয়স ৬০ বছর বা তারও বেশি তাদের সুখি হওয়ার তালিকায় ১২০তম অবস্থানে বাংলাদেশ।

কমপক্ষে এক দশক আগে এই রিপোর্ট প্রকাশ শুরু হয়। তখন থেকে এবারই প্রথম যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানি নেই বিশ্বের সবচেয়ে সুখি ২০টি দেশের ভিতরে। যথাক্রমে এ দুটি দেশের অবস্থান ২৩তম ও ২৪তম। পক্ষান্তরে শীর্ষ ২০ সুখি দেশের মধ্যে উঠে এসেছে কোস্টারিকা ও কুয়েত। তাদের অবস্থান যথাক্রমে ১২ ও ১৩।

নরডিক দেশগুলো সবচেয়ে সুখি ১০টি দেশের মধ্যে অবস্থান ধরে রেখেছে। এর মধ্যে ফিনল্যান্ডের পর আছে ডেনমার্ক, আইসল্যান্ড, সুইডেন। অন্যদিকে ভারতের অবস্থান ১২৬তম। আগের বছরও তাদের অবস্থান এই সূচকে একই ছিল। বয়স্কদের সুখি হওয়ার সূচকে ভারতের অবস্থান বাংলাদেশের একধাপ নিচে অর্থাৎ ১২১ নম্বরে মিয়ানমার ১০২ নম্বরে। পাকিস্তান ১২২ নম্বরে। নিম্ন মধ্য বয়সীদের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৯। উচ্চ মধ্যবয়সীদের ক্ষেত্রেও একই অবস্থানে বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশে সবচেয়ে সুখি হলো যুবশ্রেণি। সবচেয়ে কম সুখি উচ্চ মধ্যবয়সীরা।

এদিকে, সুখি দেশের তালিকায় সবচেয়ে নিচে রয়েছে তালেবান শাসিত আফগানিস্তান। মোট ১৪৩টি দেশের ওপর করা এই সূচকের ১৪৩ নম্বরে অবস্থান করছে আফগানিস্তান। সবচেয়ে সুখি দেশগুলোর মধ্যে এখন আর বিশ্বের কোনো বৃহৎ দেশের অবস্থান নেই। এতে বলা হয়েছে, শীর্ষ ১০ সুখি দেশের মধ্যে শুধু নেদারল্যান্ডস এবং অস্ট্রেলিয়ার আছে কমপক্ষে দেড় কোটি জনসংখ্যা। শীর্ষ ২০টি দেশের মধ্যে শুধু কানাডা ও বৃটেনের জনসংখ্যা কমপক্ষে তিন কোটি।

২০০৬ সাল থেকে ২০১০ সাল সময়কালের পর সবচেয়ে দ্রুতগতিতে সুখ কমেছে আফগানিস্তানে। সবচেয়ে দ্রুতগতিতে তা বৃদ্ধি পেয়েছে লেবানন, জর্ডান, ইউরোপিয়ান দেশ সার্বিয়া, বুলগেরিয়া ও লাতভিয়ায়। ব্যক্তিবিশেষের জীবন সম্পর্কে সন্তুষ্টির মূল্যায়ন, মাথাপিছু জাতীয় প্রবৃদ্ধি, সামাজিক সাপোর্ট, সুস্থ জীবনের প্রত্যাশা, স্বাধীনতা, উদারতা ও দুর্নীতির ওপর ভিত্তি করে করা হয়েছে এই সূচক।

ট্যাগস :

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

জনপ্রিয় সংবাদ

সুখি দেশের তালিকায় পাকিস্তান-মিয়ানমার থেকেও পিছিয়ে বাংলাদেশ

আপডেট সময় : ০১:০৯:৫১ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪

টানা সপ্তম বারের মতো বিশ্বের সবচেয়ে সুখি দেশের খেতাব ধরে রেখেছে নরডিক দেশ। জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড হ্যাপিনেস রিপোর্টে ২০২৪ সালের সুখি দেশের সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৯ নম্বরে। সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার আরো ২ দেশ পাকিস্তান ও মিয়ানমারের অবস্থান যথাক্রমে ১০৮ ও ১১৮ নম্বরে।

বুধবার (২০ মার্চ) প্রকাশিত এই রিপোর্টে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৯তম। ৩০ বছর বয়সীদের সুখি হওয়ার সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৮তম। প্রবীণ- যাদের বয়স ৬০ বছর বা তারও বেশি তাদের সুখি হওয়ার তালিকায় ১২০তম অবস্থানে বাংলাদেশ।

কমপক্ষে এক দশক আগে এই রিপোর্ট প্রকাশ শুরু হয়। তখন থেকে এবারই প্রথম যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানি নেই বিশ্বের সবচেয়ে সুখি ২০টি দেশের ভিতরে। যথাক্রমে এ দুটি দেশের অবস্থান ২৩তম ও ২৪তম। পক্ষান্তরে শীর্ষ ২০ সুখি দেশের মধ্যে উঠে এসেছে কোস্টারিকা ও কুয়েত। তাদের অবস্থান যথাক্রমে ১২ ও ১৩।

নরডিক দেশগুলো সবচেয়ে সুখি ১০টি দেশের মধ্যে অবস্থান ধরে রেখেছে। এর মধ্যে ফিনল্যান্ডের পর আছে ডেনমার্ক, আইসল্যান্ড, সুইডেন। অন্যদিকে ভারতের অবস্থান ১২৬তম। আগের বছরও তাদের অবস্থান এই সূচকে একই ছিল। বয়স্কদের সুখি হওয়ার সূচকে ভারতের অবস্থান বাংলাদেশের একধাপ নিচে অর্থাৎ ১২১ নম্বরে মিয়ানমার ১০২ নম্বরে। পাকিস্তান ১২২ নম্বরে। নিম্ন মধ্য বয়সীদের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৯। উচ্চ মধ্যবয়সীদের ক্ষেত্রেও একই অবস্থানে বাংলাদেশ। তবে বাংলাদেশে সবচেয়ে সুখি হলো যুবশ্রেণি। সবচেয়ে কম সুখি উচ্চ মধ্যবয়সীরা।

এদিকে, সুখি দেশের তালিকায় সবচেয়ে নিচে রয়েছে তালেবান শাসিত আফগানিস্তান। মোট ১৪৩টি দেশের ওপর করা এই সূচকের ১৪৩ নম্বরে অবস্থান করছে আফগানিস্তান। সবচেয়ে সুখি দেশগুলোর মধ্যে এখন আর বিশ্বের কোনো বৃহৎ দেশের অবস্থান নেই। এতে বলা হয়েছে, শীর্ষ ১০ সুখি দেশের মধ্যে শুধু নেদারল্যান্ডস এবং অস্ট্রেলিয়ার আছে কমপক্ষে দেড় কোটি জনসংখ্যা। শীর্ষ ২০টি দেশের মধ্যে শুধু কানাডা ও বৃটেনের জনসংখ্যা কমপক্ষে তিন কোটি।

২০০৬ সাল থেকে ২০১০ সাল সময়কালের পর সবচেয়ে দ্রুতগতিতে সুখ কমেছে আফগানিস্তানে। সবচেয়ে দ্রুতগতিতে তা বৃদ্ধি পেয়েছে লেবানন, জর্ডান, ইউরোপিয়ান দেশ সার্বিয়া, বুলগেরিয়া ও লাতভিয়ায়। ব্যক্তিবিশেষের জীবন সম্পর্কে সন্তুষ্টির মূল্যায়ন, মাথাপিছু জাতীয় প্রবৃদ্ধি, সামাজিক সাপোর্ট, সুস্থ জীবনের প্রত্যাশা, স্বাধীনতা, উদারতা ও দুর্নীতির ওপর ভিত্তি করে করা হয়েছে এই সূচক।